সুন্দর চুলের সাথে এখন আপনিও বাড়িয়ে তুলুন আপনার চুলের শক্তি

0

প্রতিটি মেয়েই চায় সুন্দর, ঝলমলে ও প্রানবন্ত চুল। কিন্তু বর্তমান সময়ে এরকম চুল পাওয়া অনেকটা অসাধ্যের বিষয়। কেননা আজকের মেয়েরা যুগের সাথে তাল মিলিয়ে ঘরে-বাইরে সব জায়গাতে সমানভাবে ভূমিকা রেখে যাচ্ছে। সংসার, অফিস, ক্লাশ এসবকিছু নিজেই সামলে নিচ্ছে। বাইরের ধুলোবালি, পল্যুশন, রোদ আমাদের চুলকে অনেক বেশি ড্যামেজ করে দেয়, যা চটজলদি রিপেয়ার করা বেশ কঠিন। আবার সময়ের অভাবে অনেকসময় চুলের যত্নই নেয়া হয় না। তাহলে কিভাবে পাবো মজবুত ও প্রাণবন্ত চুল?

মজবুত ও প্রাণবন্ত চুলের জন্য ব্যবহার করুন “ইমামি সেভেন অয়েলস ইন ওয়ান নন-স্টিকি হেয়ার অয়েল”

“ইমামি সেভেন অয়েলস ইন ওয়ান নন-স্টিকি হেয়ার অয়েল” তেলটি নিয়মমতো ব্যবহার করার ২ সপ্তাহ পরেই বুজতে পারবেন, এই তেলটি কিন্তু অন্য তেল থেকে আলাদা! চুলে হাত দিলেই ফিল করতে শুরু করবেন পার্থক্যটা।

ইমামি সেভেন অয়েলস ইন ওয়ান নন-স্টিকি হেয়ার অয়েল

কিছু সপ্তাহ তেলটি ব্যবহার করে আপনি আপনার চুলের ইম্প্রুভমেন্ট দেখে অবাক হবেন। আপনার চুল আগের থেকে কোমল ও মসৃণ হয়ে ওঠবে। চুলে খসখসে ভাব থাকলেও সেটা অনেকটাই ঠিক হয়ে আসবে তেলটি ইউজ করার পর। চুল পরার সমস্যাও কমে যেতে থাকবে, কারণ জট ছাড়াতে আর আগের মতো যুদ্ধ করতে হবে না! আপনার চুলও হবে আগের থেকে অনেক বেশি স্ট্রং এবং হেলদি। কালার করা হলেও চুল শাইনি দেখাবে।

কী কী বিশেষ উপাদান আছে এই তেলে?

নাম শুনেই বুজতে পারছেন “ইমামি সেভেন অয়েলস ইন ওয়ান নন-স্টিকি হেয়ার অয়েল”-এ আছে ৭টি ন্যাচারাল অয়েলের সংমিশ্রণ। ৭টি প্রাকৃতিক উপাদানের বেনিফিট পাচ্ছেন একই সাথে। এই অসাধারন ব্লেন্ডিং আপনার চুলকে হায়েস্ট বেনিফিট দিচ্ছে একটি তেলের মাধ্যমেই! চলুন জেনে নেই কোন ৭টি উপাদান আছে এতে এবং এর উপকারিতাগুলো কী।

আরগান: এই মিরাকেল তেল চুলকে হাইড্রেট রাখে আর মসৃণ করে তোলে।

ওয়ালনাট অয়েল: পটাসিয়াম সমৃদ্ধ এই তেল চুলকে আরও শক্তিশালী এবং স্বাস্থ্যকর করে তুলতে বিশেষ ভূমিকা রাখে।

আমণ্ড অয়েল: বাদাম তেল বিভিন্ন ভিটামিনে ভরপুর। ভিটামিন এ, বি, ডি এবং ই এর মতো উপাদান রয়েছে যা চুলকে কন্ডিশনড এবং শাইনি করে তোলে। সেই সাথে হেয়ারফল কমিয়ে আনতে হেল্প করে।

কোকোনাট অয়েল: খনিজ ও প্রোটিন সমৃদ্ধ এই তেল চুলকে ময়েশ্চারাইজ করে আর স্ক্যাল্পে রক্ত সঞ্চালন বাড়াতে কার্যকরী ভূমিকা রাখে।

আমলা তেল: ভিটামিন সি এবং খনিজ সমৃদ্ধ এই তেল চুল ঘন করে, চুলের রঙ ঠিক রাখে, সান ড্যামেজ রিপেয়ার করে।

অলিভ অয়েল: অ্যান্টি-অক্সিডেন্ট সমৃদ্ধ এই তেল চুলের গোঁড়ায় পুষ্টি জোগায় এবং খুশকি দূর করে।

জোজোবা তেল: চুলের আর্দ্রতা এবং পুষ্টি বজায় রাখতে সাহায্য করে, চুল পরা রোধ করে এবং বাহ্যিক ক্ষতি থেকে রক্ষা করে।

তেলটির বিশেষ কিছু দিক

এই তেল নন-স্টিকি ফর্মুলাতে তৈরি। তাই আপনি যেকোনো সময় চুলে এই তেল অ্যাপ্লাই করতে পারবেন। তেলটি সব ধরনের চুলে ইউজ করা যাবে। আপনি সপ্তাহে ২-৩ দিন অয়েল ম্যাসাজ করবেন, মাঝে মধ্যে হেয়ার প্যাকের সাথেও চুলে আর স্ক্যাল্পে অ্যাপ্লাই করবেন। আর ইমামি সেভেন অয়েলস ইন ওয়ান নন-স্টিকি হেয়ার অয়েলের ফ্রেগ্রেনসটাও কিন্তু খুবই হালকা ও মিষ্টি, যা সবার-ই খুব প্রিয়। প্যাকেজিংটাও বেশ ভালো লেগেছে। আর একটা তেল থেকেই যখন এতোগুলো প্রাকৃতিক উপাদানের পুষ্টি পাওয়া যাচ্ছে, আর কি চায় বলুন!

“ইমামি সেভেন অয়েলস ইন ওয়ান নন-স্টিকি হেয়ার অয়েল” ক্লেইম করে থাকে এটি চুল পড়া ৯৬% কমায় এবং চুলকে ২০ গুন পর্যন্ত শক্তিশালি করে তোলে, ভেতর থেকে চুলকে মজবুত করে আর বাইরে থেকেও সেট রাখে। “ইমামি সেভেন অয়েলস ইন ওয়ান নন-স্টিকি হেয়ার অয়েল” ৩টি সাইজে পাওয়া যায়। ১০০মিলি, ২০০মিলি ও ৩০০মিলি, আপনার সুবিধামতো কিনে ব্যবহার করে দেখতে পারেন।

Leave A Reply

Your email address will not be published.